রমেকে কক্সকি ভাইরাস আক্রান্ত শিশু বাড়ছে

Must read

উত্তর জনপদের অন্যতম চিকিৎসাকেন্দ্র রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে নিউমোনিয়া, শ্বাসকষ্ট ও ডায়ারিয়ার পাশাপাশি হ্যান্ড, ফুট এবং মাউথ নামে নতুন রোগে আক্রান্ত শিশু রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এই রোগে শিশুদের হাতে পায়ে এবং মুখে ফোসকা দেখা দেয়।

গত সোমবার সকালে হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ড এবং নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, করোনা প্রাদুর্ভাব কমে আসায় হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত শিশুদের ভিড় বেড়েছে। হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডগুলোতে ১১৭ শয্যার বিপরীতে ভর্তি রোগীর সংখ্যা অনেক বেশি। এমনকি ওয়ার্ডগুলোর যাতায়াতের রাস্তায় শিশুর অভিভাবকেরা অবস্থান নেওয়ায় ওয়ার্ডগুলোতে প্রবেশ করাও কষ্টকর হয়ে দাঁড়িয়েছে। বেশকিছু অভিভাবকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, জন্মের পর তাদের সন্তানের নিউমোনিয়া, খিঁচুনি-সহ বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেওয়ায় শিশু ওয়ার্ডে এসেছেন।

শিশু ওয়ার্ডের রেজিস্ট্রার ডা. আ ন ম তানভীর চৌধুরী বলেন, মূলত এই সময়ে শিশু ওয়ার্ডগুলোতে রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। প্রতিদিন ৭০ থেকে ৮০ জন নতুন শিশু বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। তবে এ বছরই প্রথম উল্লেখযোগ্য পরিমাণে হ্যান্ড, ফুট এবং মাউথ নামে নতুন রোগে আক্রান্ত শিশুরাও চিকিৎসা নিতে হাসপাতালে আসছে। গত ২ মাস ধরে এই রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। প্রতিদিন গড়ে ৪ থেকে ৫ জন শিশু এ ধরনের উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে আসছে। মূলত কক্সকি ভাইরাসের মাধ্যমে এই রোগ ছড়ায়। এই রোগে হাত ও পায়ে ফোসকা পড়ে এবং মুখে লাল হয়ে ঘা হয়। শিশুদের খেতে অসুবিধা হয়। প্রস্রাবের পরিমাণ কমে যায়।

Latest article