প্রধানমন্ত্রীর কাছে শিশুদের আকুতি ‘আমাদের মাঠটি ফিরিয়ে দিন’

Must read

অর্ধশতাব্দী ধরে যে মাঠে প্রজন্মের পর প্রজন্ম খেলে বেড়ে উঠেছে, সেই মাঠ ফিরে পেতে প্রতিবাদে শামিল হন আটককাণ্ডের সেই সৈয়দা রত্নাসহ দেশের বিশিষ্ট নাগরিকরা। আন্দোলনে হাতে হাত রাখেন পরিবেশকর্মী, সংস্কৃতিকর্মীসহ অগণিত মানুষ। এত এত মানুষকে পাশে পেয়ে শিশুরাও হারিয়ে যায় পুরোনো স্মৃতিতে। ব্যাট-বল হাতে মেতে ওঠে ক্রিকেট খেলায়। পড়ন্ত বিকেলে মাঠে পাশের দেয়ালে লেখা হয়, ‘তেঁতুলতলা মাঠে শিশুরা খেলবে, থানা নয়’। টানিয়ে দেওয়া হয় নতুন সাইনবোর্ড। তবুও শঙ্কা কাটে না। খেলতে আসা কয়েকজন শিশুর আকুতিভরা কণ্ঠ, ‘আমাদের মাঠে আমরা খেলতে চাই। প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন, মাঠটি ফিরিয়ে দিন।’

প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, তেঁতুলতলা কখনও মাঠ ছিল না, এটা পরিত্যক্ত সম্পত্তি ছিল, সেজন্য সিদ্ধান্ত হয়েছে থানা নির্মাণের। এখন বিকল্প জায়গা পেলে অন্য স্থানে থানা করার বিষয় বিবেচনা করা হবে। তবে নগর পরিকল্পনাবিদরা বলছেন, তেঁতুলতলা মাঠ কখনোই পুলিশের ছিল না, এখনও নেই। মাঠ ফিরে পাওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা আসে গতকালের কর্মসূচি থেকে। দু’পক্ষের অনড় অবস্থানে স্থানীয়দের শঙ্কা, মাঠ সংকটের এ নগরীতে মানুষের প্রতিবাদ জয়ী হবে, নাকি আরও একটি প্রজন্ম হারিয়ে যাবে সবুজের ছোঁয়া থেকে।

Latest article