নিদ্রাহীনতা দূর করার উপায়

Must read

কাজের প্রয়োজনে আমাদের অনেক সময় রাত জাগতে হয়। অনেকেই আবার বলে যে রাত জেগে কাজ না করলে কাজ হয় না। অনেকে আবার কাজ শেষের ডেডলাইন এর আগের রাতে অনেক কাজে নিমগ্ন থাকেন। এখন সোশ্যাল মিডিয়ার যুগে শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে প্রাপ্তবয়স্কদের রাত জেগে ফোন চালাতে বা ইউটিউবিং বা ফেসবুকিং করতে দেখা যায়। এতে রাত পার হয়ে যায় কখন তারা টেরই পান না! পরে দিনে বা ভোরবেলা ঘুমাতে যান। হয়তো আপাত দৃষ্টিতে বোঝা যায় না। কিন্তু এতে নিজের ওপরেই  ডেকে আনা হচ্ছে ঘোর বিপদ। গবেষণায় দেখা গেছে যারা এভাবে রাত জাগেন তাদের হৃদরোগ, উচ্চ রক্তচাপ, ক্যানসার-সহ বড়ো বড়ো রোগের ঝুঁকি থাকে!  নিদ্রাহীনতার কারণে মস্তিষ্কে চরম ক্ষতি হয়। প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তির প্রতিদিন অন্তত ৭ থেকে ৮ ঘণ্টা ঘুম প্রয়োজন। তাই নিদ্রাহীনতার অভ্যাস ত্যাগ করা খুবই জরুরি। আমরা যদি ভোরে ঘুমিয়ে দুপুরে উঠি তাহলে সারাদিনই এক ধরনের ঝিমুনি কাজ করে। এতে কোনো কাজে মনোনিবেশ করাও কঠিন হয়ে যায়। তাই ভোরে ঘুম থেকে ওঠার অভ্যাস করাটা জরুরি। রাতে দ্রুত ঘুমাতে কয়েকটি টিপ্স: 

১. রাত ১০/ ১১ টার মধ্যে শুয়ে পড়া

২. ফোন ব্যবহার না করা বা দূরে রাখা যাতে চাইলেই ফোন হাতের নাগালে না আসে

৩. নিয়মিত ব্যয়াম করা বা পরিশ্রম করা

৪. ভাল শাকসবজি, ফলমূল খাওয়া

৫. দিনে কোনোভাবেই না ঘুমানো।

৬. বিছানায় ঘুমানো ছাড়া অন্য কাজ না করা।

উপরিক্ত পদ্ধতি অবলম্বন করলে নিদ্রাহীনতা খুব সহজেই দূর করা সম্ভব হবে।

ছবি সূত্র: The Daily Ittefaq

Latest article